বৃহস্পতিবার, ২৮শে জানুয়ারি, ২০২১ ইং, ১৪ই মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ১৪ই জমাদিউস-সানি, ১৪৪২ হিজরী
বৃহস্পতিবার, ২৮শে জানুয়ারি, ২০২১ ইং

নড়িয়ায় আধিপত্য বিস্তার নিয়ে দু’পক্ষের সংঘর্ষে আহত ৩০, অর্ধশতাধিক বাড়িতে ভাংচুর ও লুটপাট

নড়িয়ায় আধিপত্য বিস্তার নিয়ে দু’পক্ষের সংঘর্ষে আহত ৩০, অর্ধশতাধিক বাড়িতে ভাংচুর ও লুটপাট

শরীয়তপুর নড়িয়া উপজেলায় আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে দু’পক্ষের সংঘর্ষে নারীসহ উভয় গ্রুপের অন্তত ৩০ জন আহত হয়েছে। আহতদের শরীয়তপুর সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। দুই জনের অবস্থা আশংকা জনক হওয়ায় উন্নত চিকিৎসার জন্য তাদের ঢাকায় প্রেরণ করা হয়েছে। শনিবার (৯ জানুয়ারি) সকাল থেকে বিকাল পর্যন্ত দফায় দফায় সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। উপজেলার মোক্তারের চর ইউনিয়নের মহিষখোলা গ্রামে এই ঘটনা ঘটে।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্র জানায়, দীর্ঘদিন ধরে মোক্তারের চর ইউনিয়নের বর্তমান মেম্বার তারেক ভূইয়া ও সাবেক মেম্বার মোস্তফা মাদবরের ছেলে জাকির মাদবরের এবং তাঁদের সমর্থক ও লোকজনের মধ্যে আধিপত্য বিস্তার নিয়ে বিরোধ চলছিল। গত সপ্তাহে হারুন মল্লিকের মেয়ের বিয়েতে দিদার মাদবরকে বিয়ের দাওয়াত দিতে না করেছিলেন তারেক ভূইয়ার সমর্থকরা। তাদের কথা না শুনে জাকির মাদবরের সমর্থক দিদার মাদবরকে দাওয়াত দেন হারুণ মল্লিক। এ ঘটনায় তারেক ভূইয়ার সমর্থকের মধ্যে কথা কাটাকাটি হয় হারুণ মল্লিকের সাথে, কথা কাটা কাটির এক পর্যায়ে দিদার মাদবর হারুণ মল্লিকের সাথে এসে তারেক ভূইয়ার সমর্থকদের সাথে বিরোধে জড়িয়ে পরে। বিরোধের জেরে সকালে মল্লিক বাড়ির লোক জনের সাথে হারুণ মাদবরের মারামারি ঘটনায় ঘটে। সকালে পাশের গ্রামে জাকির মাদবরের সমর্থকে মারধর করছে এমন খবরে উত্তেজিত হয় জাকির মাদবরের গ্রুপের সন্ত্রসীরা। পরে জাকির মাদবরের সাথে তারেক মেম্বারের কথা কাটাকাটি হয়। সকালে তারেক ভূইয়াকে থানায় ডেকে নিয়ে যাওয়ার পর দুপুরে আবার জাকির মাদবরের সমর্থক ও ভারাটিয়া সন্ত্রাসীরা দেশীয় অস্ত্রাদি নিয়ে তারেক মেম্বার ও তার সমর্থকদের বাড়ি ঘর ঘেড়াও করে। ইট পাটকেল মারতে থাকে। এতে উভয় পক্ষের মধ্যে সংর্ঘষ বেধে যায়।

এ ঘটনায় তারেক মেম্বারে বাড়ি ও তার সমর্থকের বাড়িতে হামলা চালিয়ে তাদের অর্ধশতাধিক বাড়ি ঘর ভাংচুর ও লুটপাট করে জাকির মাদবরের সন্ত্রাসী বাহিনীরা। এ ঘটনার জেরে শনিবার সকাল থেকে বিকাল পর্যন্ত দফায় দফায় উভয় পক্ষের লোকজন দেশীয় অস্ত্র ও পিস্তল নিয়ে সংঘর্ষ হয়। এতে উভয় পক্ষের অন্তত ৩০ জন আহত হয়েছেন। আহত ব্যক্তিদের উদ্ধার করে শরীয়তপুর সদর হাসপাতালে নেওয়া হয়। গুরুতর আহত ১২ জনের ভিতরে দুই জনকে শরীয়তপুর সদর হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়ার পর তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। তারা দুই জন হলেন আবুল কালাম ভূইয়া ও দিদার মাদবর। বাকী ১০ জন শরীয়তপুর সদর হাসপাতালে ভর্তি আছেন তারা হলেন, রুণা বেগম, শাকিলা আক্তার, দেলোয়ার ভূইয়া মামুন ভূইয়া, রবিন, রুবেল ভূইয়া, জামাল, মিলন, ছায়েদুল, রাকিব।

দেলোয়ার হোসেন ভূইয়া বলেন, জাকির মাদবরের লোকজন তারেক ভূইয়ার সমর্থকদের বাড়ি ঘর ঘেরাও করে ইট পাটকেল ছুড়তে থাকে। জাকির মাদবরের লোকজন কয়েক রাউন্ড গুলি ছোড়ে এতে আমরা কয়েজন গুলি বিদ্ধ হয়েছি। ৪০/৫০টি বসত ঘর ভাংচুর করে সব কিছু লুটপাট করে নিয়ে গেছে জাকির মাদবরের সন্ত্রাসী বাহিনীরা।

জাকির মাদবরের সমর্থক আহত মিলন বলেন, আমাদের লোকজন আটকিয়ে রাখছে তাকে উদ্ধার করতে গেলে তারা আমাদের উপর হামলা চালায়, এক পর্যায়ে আমাদের সাথে তাদের সংঘর্ষ বেধে যায়।

জাকির মাদবরের সাথে যোগাযোগ করতে চাইলে তাকে বাসায় গিয়ে পাওয়া যায়নি।

নড়িয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা হাফিজুর রহমান বলেন, দু’গ্রুপে সংর্ঘেষ ঘটনা ঘটেছে। উভয় গ্রুপের ৫ জনকে আটক করা হয়েছে। এখনো এলাকায় থমথমে পরিস্থিতি বিরাজ করছে।