মঙ্গলবার, ১৪ই জুলাই, ২০২০ ইং, ৩০শে আষাঢ়, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২৩শে জিলক্বদ, ১৪৪১ হিজরী
মঙ্গলবার, ১৪ই জুলাই, ২০২০ ইং

অবৈধ ড্রেজারে বাধা দেওয়ায় ব্যবসায়ীর দুটি আঙ্গুল কেটে নিলো

অবৈধ ড্রেজারে বাধা দেওয়ায় ব্যবসায়ীর দুটি আঙ্গুল কেটে নিলো

শরীয়তপুরের জাজিরা উপজেলায় ড্রেজার নিয়ে সংঘর্ষের সময় সেনদা দিয়ে কোপ দিয়ে কাঁচমাল ব্যবসায়ী জলিল টেপার (৫০) দুটি বুড়ো আঙ্গুল কেটে দিয়েছে বিপক্ষ দলের লোকজন। আহত অবস্থায় জলিলকে জাজিরা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা প্রেরণ করা হয়। এছাড়া তার স্ত্রী নাসিমা বেগম (৪০) ও তার চাচা হামেদকে (১০৫) গুরুতর আহত অবস্থায় চিকিৎসার জন্য ঢাকা নেয়া হয়েছে। শুক্রবার (১৯ জুন) দুপুর ২টার দিকে উপজেলার মূলনা ইউনিয়নের মিরাসার গ্রামে এ সংঘর্ষর ঘটনা ঘটে।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্র জানায়, ওই গ্রামের মাষ্টার এনামুল চৌকিদার, সিরাজ মাদবর ও ফজলু মাদবর তাদের জমি ভরাট করার জন্য কাজিরহাট কৃত্তিনাশা নদীতে ড্রেজার বসায়। গত এক সপ্তাহ যাবত ড্রেজার বসিয়ে বালি উত্তোলন করছিলো তারা। একই গ্রামের হামেদ খাঁ ও জলিল টেপা তাদের জমিতে পাইপ বসিয়ে বালি উত্তোলন করতে নিষেধ করেন ড্রেজার মালিকদের। তখন দুপক্ষের লোকজনের সঙ্গে বাকবিতন্ডা হয়। বাকবিতন্ডার একপর্যায়ে দুইপক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ বাঁধে । সংঘর্ষে হামিদ খাঁ, জলিল টেপা ও নাসিমা বেগম আহত হন। আহত অবস্থায় তাদের জাজিরা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা প্রেরণ করা হয়।

জলিল টেপার ভাই সোবহান টেপা বলেন, আমাদের জমিতে সিরাজ মাদবর ও ফজলু মাদবর ড্রেজার বসালে আমরা ড্রেজার চালাতে নিষেধ করি। কারন, ড্রেজার বসানোর কারনে ঐ জায়গায় অনেক গভীর হয়ে গেছে, এতে আমাদের জমি ভেঙ্গে পড়ছে। আশপাশের জমিও ভেঙ্গে পড়ছে। এ বিষয়ে তর্ক হলে আমার ভাই জলিল টেপার সাথে সংঘর্ষ বাধে। সংঘর্ষের একপর্যায়ে জলিল টেপার আঙ্গুল কাটা যায়, তার স্ত্রীর কানে কোপ লাগে ও হামেদ খার টেঠার কোপ লাগলে তাদের গুরুতর আহত অবস্থায় ঢাকায় চিকিৎসা জন্য পাঠানো হয়। তিনি আরও বলেন, করোনার এই দুর্যোগ মুহূর্তে মসজিদ ভাঙতেও তারা কুন্ঠাবোধ করেনি।

মাষ্টার এনামুল চৌকিদার বলেন, আমি আমার জমিতে ড্রেজার দিয়ে বালুমাটি ফেলার জন্য কথা বলছিলাম। কিন্তু জলিল টেপা ড্রেজার দিয়ে মাটি কাটা বাধা দিলে বাকবিতণ্ডার একপর্যায়ে হাতাহাতি মারামারি হয়। তারপর আমার মটরসাইকেল ভেঙ্গে ফেলায় আমাদের লোকজন ক্ষিপ্ত গিয়ে কিছু ইটপাটকেল ছুড়ে। এতে আমাদের একজন গুরতর আহত হয়। তাকে ঢাকা চিকিৎসা জন্য পাঠানো হয়। জলিল টেপাদের লোকজনের কি ক্ষতি হয়েছে আমি জানি না।

জাজিরা ওসি আজহারুল ইসলাম সরকার মোবাইল ফোনে বলেন, ড্রেজার নিয়ে তর্কের এক পর্যায়ে মনুয়ার মিরাসারে মারামারি হয়। আমাদের পুলিশ গিয়ে মারামারি নিয়ন্ত্রণে আনে। এ বিষয়ে এখনো কোন মামলা হয়নি।