মঙ্গলবার, ৩০শে মে, ২০২৩ ইং, ১৬ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ, ১০ই জিলক্বদ, ১৪৪৪ হিজরী
মঙ্গলবার, ৩০শে মে, ২০২৩ ইং
জাজিরায়

স্বজনদের পুরনো কবর স্থানান্তর

স্বজনদের পুরনো কবর স্থানান্তর

শরীয়তপুরের জাজিরা উপজেলার জয়নগর ইউনিয়নের উত্তর কেবলনগর কাজী কান্দী গ্রামে বাবা, মা, দাদী, কাকা ও ভাবীর পুরনো কবর নিজস্ব জায়গায় পারিবারিক কবরস্থানে সরিয়ে নিয়েছেন সুলতান ঢালী। বৃহস্পতিবার (২৪ সেপ্টেম্বর) তিনি নিজ উদ্যোগে কবরগুলো সরিয়ে নেন।

জানা গেছে, ওই গ্রামের একই বংশের সুলতান ঢালী ও খালেক ঢালীর মধ্যে সম্প্রতি তাদের পৈত্রিক সম্পত্তি ভাগ বাটোয়ারা হয়। এতে সুলতান ঢালীর বাবা আব্দুল মজিদ ঢালী, মা মনি বেগম, কাকা সামাদ ঢালী, ভাবী জয়নব ও দাদীর পুরনো কবর খালেক ঢালীর জায়গার মধ্যে পড়ে। তাই সুলতান ঢালী তার বাবা-মা সহ আত্মীয় স্বজনের কবর নিজস্ব জায়গায় পারিবারিক কবরস্থানে সরিয়ে নেয়ার উদ্যোগ নেন। বৃহস্পতিবার নিজ উদ্যোগে তিনি লোকজন নিয়ে কবরগুলো সরিয়ে নেন।

স্থানীয়রা জানান, খালেক ঢালী ও এলাকার মুরব্বীরা ওই কবরস্থানের জায়গা সুলতান ঢালীকে দিতে চেয়েছিলেন। কিন্তু সুলতান ঢালী তার নিজ স্বার্থে এবং সুবিধার জন্য পছন্দমত জায়গা বেছে নিয়েছেন। তিনি চাইলে কবরগুলো না সরিয়ে ওই জায়গা নিতে পারতেন। কিন্তু তিনি তা না করে পুরনো কবরগুলো সরিয়ে নিয়েছেন। এটা অমানবিক ও দুঃখজনক।

এ বিষয়ে সুলতান ঢালী বলেন, পৈত্রিক সম্পত্তি ভাগ বাটোয়ারা নিয়ে আমার চাচতো চাচা খালেক ঢালীর সাথে দীর্ঘদিন বিরোধ ছিল। সম্প্রতি এলাকার মুরব্বীরা আমাদের দু’জনের মধ্যে পৈত্রিক সম্পত্তি বন্টন করে দেন। এতে আমার বাবা-মা, দাদী, কাকা ও ভাবীর কবর খালেক ঢালীর মধ্যে চলে যায়। তাই আমি আলেমদের সাথে পরামর্শ করে কবরগুলো নিজস্ব জায়গায় সরিয়ে নিয়েছি।

স্থানীয় সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান মিন্টু কাজী বলেন, সুলতান ঢালী নিজ ইচ্ছায় ব্যক্তিগত উদ্যোগে তার আত্মীয় স্বজনের পুরনো কবর নিজস্ব জায়গায় সরিয়ে নিয়েছেন। এটা তার ব্যক্তিগত বিষয়। এ ব্যাপারে আমার কিছু বলার নেই।


error: Content is protected !!