বৃহস্পতিবার, ২৭শে জানুয়ারি, ২০২২ ইং, ১৩ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২৪শে জমাদিউস-সানি, ১৪৪৩ হিজরী
বৃহস্পতিবার, ২৭শে জানুয়ারি, ২০২২ ইং

জাজিরায় স্ত্রীকে খুঁজে আনতে গিয়ে হত্যার শিকার হচ্ছিল স্বামী

জাজিরায় স্ত্রীকে খুঁজে আনতে গিয়ে হত্যার শিকার হচ্ছিল স্বামী

পালিয়ে যাওয়া স্ত্রীকে খুঁজে আনতে গিয়ে শ্বশুর বাড়ির লোক-জনের হাতে হত্যার শিকার হচ্ছিল প্রবাসী মিন্টু দেওয়ান।

জানা গেছে, শরীয়তপুরের জাজিরা উপজেলার সেনেরচর ইউনিয়নের মোল্লাকান্দি গ্রামে মনির মাদবরের মেয়ে পলাশী আক্তার (২৮) নামের এক গৃহবধূ প্রবাসী স্বামীর স্বর্ণালংকার ও নগদ টাকা নিয়ে পালিয়ে যায় ।

২৪ নভেম্বর স্ত্রী পলাশী আক্তার কে খুঁজতে পূর্ব নাওডোবা মাঝির ঘাট এলাকায় অবস্থান করছে এমন সংবাদে ভিত্তিতে খুঁজে আনতে গেলে পথিমধ্যে শ্বশুরবাড়ির লোকজন মাইক্রোর ভিতর আটকে হত্যার চেষ্টা করে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ব্যাপারে মিন্টু দেওয়ান হয়ে জাজিরা থানায় একটি হত্যা চেষ্টার মামলা দায়ের করেছে। এ ঘটনায় পুলিশ তিনজনকে আটক করেছেন।

পলাশী আক্তারের স্বামী মিন্টু দেওয়ান জানান, গত ১৭ তারিখ পলাশী আক্তার নগর ২ লক্ষ ৬০ হাজার টাকা ও ৯ভরি স্বর্ণালংকার নিয়ে পালিয়ে যায়। এরপর গত ১৪ ই নভেম্বর ২৪ নভেম্বর বুধবার দুপুর ৩টার দিকে পলাশী আক্তার সহ তার পরিবার পূর্ব নাওডোবা ঘাট এলাকায় অবস্থান করছে এই সংবাদের ভিত্তিতে আমি রওনা দেই এরপর জাজিরা থানার ইউনিয়নের চৌকিদার কান্দি রাস্তার মোড়ে অবস্থান করি এবং তাদের আমি তখন মাইক্রোবাসটির গতিরোধ করে টাকা ও স্বর্ণালংকার চাই এবং স্ত্রীকে বাড়িতে ফিরিয়ে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করি। তখন মাইক্রোবাসটি থাকা আমার শশুর মনির পরিকল্পিত ভাবে আমাকে জড়িয়ে ধরেন এবং রোজিনা বেগম আমার মুখ ধরে রাখেন এবং আবু বক্কর সিদ্দিক আমার গলায় ধারালো ছুরি দিয়ে আমার গলা কাটার চেষ্টা করে। আমার ডাক চিৎকাওে তারা পলিয়ে যায়। স্থানীয়রা আমাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যায়। এতে আমার গলায় দুই ভাগের বেশি ক্ষত হয়ে যায় এবং ত্রিশটির মতো সেলাই করা হয়। এ ব্যাপারে আমি থানায় মামলা করি।

জাজিরা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাহবুবুর রহমান জানান, অভিযোগের ভিত্তিতে তিনজনকে আটক করে জেলহাজতে প্রেরণ করা হয়েছে। বাকিদেরকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।