বৃহস্পতিবার, ২৭শে জানুয়ারি, ২০২২ ইং, ১৩ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২৪শে জমাদিউস-সানি, ১৪৪৩ হিজরী
বৃহস্পতিবার, ২৭শে জানুয়ারি, ২০২২ ইং

জাজিরা বিশ্ববিদ্যালয় কলেজে শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে বিনা রশিদে টাকা নেয়ার অভিযোগ

জাজিরা বিশ্ববিদ্যালয় কলেজে শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে বিনা রশিদে টাকা নেয়ার অভিযোগ

শরীয়তপুরের জাজিরা জাজিরা বিশ্ববিদ্যালয় কলেজের অধ্যক্ষ মতিউর রহমানের বিরুদ্ধে বিনা রশিদে এইচএসসি পরিক্ষার্থীদের নিকট হতে এডমিট কার্ড বাবদ ৫০০ করে টাকা নেয়ার অভিযোগ উঠেছে। অবিভাবকদের কেউ টাকা দিতে অপারগতা প্রকাশ করলে কলেজ শাখা ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের দিয়ে অভিভাবকদের লাঞ্ছিত করার মতো ঘটনাও ঘটেছে বলে জানা গেছে।

অভিবাবক ও পরীক্ষার্থী জানান, এইচএসসি পরিক্ষার জন্য এডমিট কার্ড আনতে গেলে ৫০০টাকা ছাড়া কাউকে এডমিট কার্ড দিচ্ছেন না। অফিস সহকারী খোকন শাহ শিক্ষার্থীদের জানান প্রিন্সিপাল স্যারের নির্দেশ ৫০০টাকা না দিলে এডমিট কার্ড কেউ পাবে না।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন অভিবাবক বলেন, এর আগে তাদের সকল বকেয়া বেতন পরিশোধ করেছি, তবুও ৫০০টাকা কেনো দেয়া লাগবে জিজ্ঞেস করলে কলেজ শাখা ছাত্রলীগের নেতা পরিচয়ে রানা বেপারী ও তার লোকজন আমাকে অধ্যক্ষ মতিউর রহমানের সামনেই কলেজ থেকে বের হতে বলে। এবং বের হলে মারধর করবে বলে হুমকি দেয়।

কলেজ সূত্রে জানা গেছে, প্রতিটি ছাত্র-ছাত্রীদের থেকে নির্ধারিত বেতন ও কেন্দ্র ফি বাবদ সম্পুর্ন টাকা আগেই নেয়া হয়েছে। কলেজ কর্তৃপক্ষের বেধে দেয়া নির্ধারিত ফি যারা দিতে পারেনি তাদেরকে পরিক্ষা দেয়ার সুযোগ থেকেও বঞ্চিত করা হয়েছে।

এই বিষয়ে জাজিরা কলেজের অধ্যক্ষ মতিউর রহমানের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, যাদের বেতন বকেয়া বাকি রয়ে গেছে, তাদের নিকট হতে ৫০০ করে টাকা নেয়া হচ্ছে। বিষয়টি মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার ও ইউএনও জানেন। ছাত্রলীগের কাউকে আমি কথা বলতে ডাকিনি। তবে কারো সাথে ছাত্রলীগের কেউ কথা কাটাকাটিতে জড়ালে আমার কিছু করার নেই।

এদিকে মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মুজাম্মেল হক জানান, বিনা রশিদে টাকা তোলার কোনো সুযোগ নেই। আমি বিষয়টি খতিয়ে দেখবো। কোনো ছাত্রলীগের কেউ ছাত্র-ছাত্রীদের অবিভাবকের সাথে টাকা পয়সা নিয়ে কোনো কথা বলার অধিকার রাখেনা।

এই বিষয়ে জাজিরা উপজেলা নির্বাহী অফিসার আশরাফুজ্জামান ভূঁইয়া মুঠোফোনে জানান, এডমিট কার্ড বাবদ কোনো টাকা নেয়ার নিয়ম নেই। আমি এই বিষয়ে কিছু জানিনা। বিষয়টি তদন্ত করে দেখা হবে।