মঙ্গলবার, ৬ই ডিসেম্বর, ২০২২ ইং, ২১শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ১১ই জমাদিউল-আউয়াল, ১৪৪৪ হিজরী
মঙ্গলবার, ৬ই ডিসেম্বর, ২০২২ ইং
জাজিরার সেনেরচর

প্রতিপক্ষের হামলায় বাড়িঘর ভাংচুর ও লুটপাট

প্রতিপক্ষের হামলায় বাড়িঘর ভাংচুর ও লুটপাট

প্রতিপক্ষ সন্ত্রাসী ছমেদ মাদবর গংদের হামলায় বাড়িঘর ভাংচুর ও লুটপাটের ঘটনা ঘটেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় আহত আবুল দরজী ও তার স্ত্রী হনুফা বেগম ও আবুল দরজীর মা তছিরন বেগম সহ ইদ্রীস মাদবর ও রুবেল মাদবর হামলার শিকার হয়েছেন।

শরীয়তপুরের জাজিরা উপজেলার সেনেচর ইউনিয়নের ছোট কৃষ্ণনগর গ্রামে গত ২ সেপ্টেম্বর শুক্রবার সকাল ৭ টার দিকে অর্ধশতাধিক সন্ত্রাসীারা প্রকাশ্যে হামলার ঘটনার কিছু ভিডিও সোশাল মিডিয়া ফেইসবুক সহ সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পরে।

সরেজমিনেগিয়ে জানা যায়, ছোট কৃষ্ণনগর গ্রামে মৃত্র আয়নাল মাদবরের ছেলে ইদ্রিস মাদবর (৩৮) এর সাথে একই গ্রামের বাসীন্দা ছমেদ মাদবরের সাথে দীর্ঘ দিন ধরে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্রকরে বিরোধ চলে আসছিল। বিষয়টি নিয়ে এলাকার চেয়ারম্যান সহ মিমাংসার জন্য একাধিক শালিসি বৈঠক করেন, কিন্তু ছমেদ মাদর(৬০) শালিসি রায় অমান্য করে জোরপূর্বক জমি দখলের পায়তারা করতে থাকেন অভিযোগ পাওয়া গেছে। দেশি অশ্রু ও লাঠিসোটা নিয়ে ইদ্রিস মাদবরের সিমানা পিলার বসত বাড়ি ভাংচুর ও লুটপাট চালান। এঘটনায় ভুক্তভোগী ইদ্রিস মাদবর শরীয়তপুর বিজ্ঞ চীফ জুডিশিয়াল মেজিষ্ট্রিট আদালতে মামলা দায়ের করেছেন।

ভুক্তভোগীর বোন ছাদিয়া আক্তার ও রব মাদবর, এস্কান মাদবর, ফারুক মাদবর, মানিক মাদবর, ফয়জল মাদবর জানান, ছমেদ মাদবর একজন মামলাবাজ, সে এলাকার নির্বীহ মানুষ দোরকে বিভিন্ন ভাবে মামলার করে লক্ষ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নেওয়ার জন্য এই প্রর্যন্ত ১৭ টি মামলা দায়ের করছেন, এতে এলাকার ওই মানুষগুলো হয়রানির শিকার বলে জানান।

এব্যাপারে ছমেদ মাদবরের বাড়িতে তার সাথে যোগাযোগ করতে গিয়ে তাকে পাওয়া যায়নি।

সেনেরচর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ জালাল জমাদার জানান, আমারা ইদ্রীস মাদবর ও ছমেদ মাদবর দের নিয়ে একাধিক শালিসি বৈঠক করেছি, কিন্তু ছমেদ মাদবর শালিসি অমান্য করে তাদের সিমানা পিলার সহ বসতি বাড়িতে মামলা করেন আমি শুনেছি এটা দুঃখ জনক আচরণ, তাই ইদ্রীস মাদবর ও তারপরিবাকে আইনের সহযোগিতা নেওয়া কথা জানিয়েছি।

জাজিরা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা বলেন, আমাদের পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনেন। হামলাকারীরা সিমানার পিলার সহ বাড়িঘর ভাংচুর ও লুটপাট করেছে বলে আমাদেও নিকট অভিযোগ এসেছে। বর্তমানে এলাকার পরিস্তিতি নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। আমার তদন্ত করে দোষীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহন করবো।


error: Content is protected !!