শনিবার, ৩০শে মে, ২০২০ ইং, ১৬ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ৭ই শাওয়াল, ১৪৪১ হিজরী
শনিবার, ৩০শে মে, ২০২০ ইং

কবি মির্জা হজরত সাইজী একজন সফল মানুষ

কবি মির্জা হজরত সাইজী একজন সফল মানুষ

কবি মির্জা হজরত সাইজী নামের মধ্যেই জ্ঞানী মানুষের ইঙ্গিত বহন করে। এই পৃথিবীতে যত জ্ঞানী মানুষের জন্ম হয়েছে প্রত্যেকের নামের মধ্যেই কিছু ভিন্ন মহিমা লক্ষ্য করা যায়। মির্জা হজরত সাইজী একজন কবি একজন আইনজীবি রাজনীতিবিদ ও শিক্ষানুরাগী। এই পরিচয়গুলির মধ্যে কবি পরিচয়টি আমার কাছে সবচেয়ে বড় পরিচয়। কারণ সবাই কবি হতে পারে না। সত্যিকার অর্থেই তিনি একজন সফল মানুষ। তিনি গ্রামে জন্মগ্রহণ করার কারণে শৈশবে গ্রামের কাদামাটি মেখেছেন গায় আর দেখেছেন নদী ভাঙ্গা মানুষের দুঃখ কষ্ট, দেখেছেন নদী হাট প্রকৃতি, মিশেছেন গ্রামের সহজ সরল মানুষের সাথে। তার সমস্ত কবিতায় তিনি সেই সকল গ্রামের কথা বলেছেন বার বার। এরপর কৈশরে তিনি ঢাকায় বড় হয়েছেন, শহরের মানুষের সাথে মিশে নতুন অভিজ্ঞতা সঞ্চয় করেছেন, গ্রাম ও শহরের মানুষের মধ্যে পার্থক্য উপলব্ধি করেছেন। ঠিক ঐ সময় দেশে মহান মুক্তিযুদ্ধ শুরু হয়। তিনি মুক্তিযুদ্ধের প্রত্যক্ষ স্বাক্ষী। মুক্তিযুদ্ধের সময় তিনি পরিবারের সাথে পায়ে হেঁটে ঢাকা থেকে এসেছেন গ্রামে। এ চলার পথে তিনি দেখেছেন তৎকালীন সময়ের শহর ও গ্রামের মুক্তিযুদ্ধ ও মানুষের দুঃখ কষ্টের জীবন ব্যাবস্থা। তার দেখা এই মুক্তিযুদ্ধের ঘটনা নিয়ে একটি চলচ্চিত্র নির্মাণ হতে পারে। এরপর তিনি ছাত্র রাজনীতিতে য্ক্তু ছিলেন। বাংলাদেশের ছাত্র রাজনীতিতে আশির দশক ছিলো স্বর্ণযুগ। মুক্তিযুদ্ধ পরবর্তীতে স্বৈর শাসক জিয়া এবং  এরশাদের বিরুদ্ধে আন্দোলন সংগ্রামের প্রধান ভূমিকা ছিলো ছাত্রদের। ঐ সময় ছাত্রনেতা হওয়া ছিলো অত্যন্ত সৌভাগ্যের। তিনি ঐ স্বর্নযুগেরও একজন স্বাক্ষী। তার সবচেয়ে সফলতা যাকে তিনি জীবন সঙ্গী করে নিতে চেয়েছিলেন তাকেই জীবন সঙ্গী হিসেবে পেয়েছেন। একজন কবির জন্য এটাও একটি সৌভাগ্যের বিষয়। এরপর রাজনীতিবিদ হওয়ার লক্ষ্যে পেশা হিসেবে আইন পোশাকে বেছে নিয়েছেন। এখানেও তিনি সফলতা পেয়েছেন। তার সহধর্মীনি একজন আইনজিবী এবং জেলা পরিষদের নির্বাচিত সম্মানিত মহিলা সদস্য। এছাড়া তিনি তার গ্রামের নদী ভাঙ্গা মানুষের জন্য নিজ অর্থে মির্জা হজরত আলী নামে একটি হাইস্কুল নির্মাণ করেছেন। এক কথায় বলা যায় তিনি একজন সফল মানুষ। তার পোষাক পরিচ্ছদ, চলাফেরায়, কথাবার্তায় ফুটে ওঠেছে একজন গুণী এবং কবিতার মানুষের নিখুঁত ছাপ। আমি তার এই জন্মদিনে দীর্ঘয়ু ও সুস্থতা কামনা করছি।

এ্যাড. মুরাদ হোসেন মুন্সী
(বিশিষ্ট সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব ও আইনজীবী, শরীয়তপুর)